প্রথম পাতা » সকল পোস্ট (Page 30)

সকল পোস্ট

Moon Beauty

Jealous হওয়ার গল্প

সৃষ্টির পর সবাইকে বলা হলো তোমরা মানব কল্যাণে তোমাদের ভূমিকা উপস্থাপন করো। অন্যের কাছ থেকে কিছু ধার করাও যাবে। তবে শর্ত হলো, সবই হতে হবে মানব কল্যাণে।সূর্য কিরণ দিল। মানুষ খুশি হলো। এবার চাঁদের পালা। চাঁদের মন খারাপ। তার তো আলো নেই। সে ভাবলো মানব কল্যাণে সূর্যের আলোই ধার করে

পুরোটা পড়ুন

হেলিকপ্টার

বাইরে আর পারি না বেড়োতেআবার যাব ঘুরতে!!!?তাই কিনেছি কপ্টারশোধ নেবো সবটার।অনলাইনের বাজার,একটু খানি উড়েইউসুল টাকা হাজার।উড়তে গিয়ে খেয়ে আছাড়ইঞ্জিন বেচারা হয়েছে সাবাড়।কই ভেবেছি লাগিয়ে ক্যামেরাড্রোন বানিয়ে দেখব এবারধরণীর চেহারা।এখন উড়বেটা কি ছাই!চাকা থাকলেও হতো একটুমনের কোণে ঠাই ।উড়তে পেরেও পাখির আছে ঠ্যাং,কপ্টারেতে দিলেও চাকাব্যাঙ করতো ঘ্যাঙর ঘ্যাঙ।

পুরোটা পড়ুন
Grave of the Fireflies

জোনাকির কবর

১৯৪৫ সালে জাপানের নাগাসাকিতে নিউক্লিয়ার বোমা বিষ্ফোরণের পর এই হৃদয়বিদারক ছবিটি তোলা হয়। ছবিটিতে বিষ্ফোরণের সময় মারা যাওয়া ছোটভাইয়ের মৃতদেহ পিঠে করে দাঁড়িয়ে আছে ছেলেটি। ছেলেটি যেখানে দাঁড়িয়ে ছিলো সেটি ছিলো শহরের বাইরে একটি অস্থায়ী কবরস্থান যেখানে বিষ্ফোরণের সময় মারা যাওয়া সকলের সৎকারের ব্যবস্থা করা হচ্ছিলো। ছেলেটি সেখানে দাঁড়িয়ে ছিলো

পুরোটা পড়ুন
rain and flower

সে হেঁটে বেড়ায়

সে বৃষ্টির মাঝে হেটে বেড়ায় নির্লিপ্ত দিনে ।যেন তারাখচিত আকাশের রাত।কালো ও আলোর মিশ্রণেতার রুপ এবং তার চোখ একাকার।এ সেই কমনীয় আলো,যা আকাশ দিতে নারাজ নিষ্প্রাণ দিনকে ।

পুরোটা পড়ুন

উদাসীন লেখকের মনের কথা

(মীর মশাররফ হোসেনের “উদাসীন পথিকের মনের কথা”র শিরোনামের অনুকরণ, যদিও বিষয়বস্তুর সাথে কোন মিল নাই)না পইড়া হয় না লেখা!আমি শুধু করি লেখার ধান্দাগলায় ঝুলাইয়া লেখকের ঝান্ডা।বইসা বইসা লাইক গুনিকে কি বলে তাহাই শুনি।লেইখা লেইখা হইছি অন্ধনা পইড়া ছড়াইছি গন্ধ।

পুরোটা পড়ুন
drum

বাজাও ডঙ্কা

যাব আজ ছেড়ে ধরাপরান ছেড়ে ওপারেতে;লবো আজ মৃত্যু আমিসুখের সাথে আঁচল পেতে।তোরা সব পথ খুলে-দে,দ্বার খুলে-দেহাতে তুলে-দে মশাল;খুলে-দে পায়ের বেড়ি,পুড়ে ছাঁই করব আমি,যত সব জঞ্জাল।আমার যে নেই কোনো ভয়মৃত্যু আমার খেলার সাথে;বহুবার মরেছি আমিমৃত্যু দিয়ে মালা গাথি ।আমি এতকাল ছিলাম মৃতমরার মতো ঘরের কোণে;পায়েতে ছিল বেড়ি, হাতে কড়িঘরের টানে।আজ আমার

পুরোটা পড়ুন

শিক্ষক দিবসের কড়চা

বিশ্বে শিক্ষকদিবস আছে, বাংলায় নেই। বাঙালি শিক্ষক চায় না। ফলে এতদ্বিষয়ক দিবস নিয়েও তাদের মাথাব্যথা নেই। আমজনতার কাছে শিক্ষকতা কোনো পেশা না। যারা চাকরি পায় না তারাই এদেশে মাস্টারি করে জীবনের গুরুভার বহন করে। গ্রামবাংলায় বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি আর থানার দারোগা একসাথে চা খেতে বসলে দারোগার চা আগে আসবে। দারোগার কাপ

পুরোটা পড়ুন

শুকিয়ে যাওয়া নদী

আমি এক শুকিয়ে যাওয়া নদীযার অন্তরে আজ উত্তপ্ত বালুরাশি,মরুভূমির হাহাকার হৃদয় জুড়েপিপাসায় করুণ আর্তনাদ নিরবধি।আমি এক শুকিয়ে যাওয়া নদী।নব যৌবনে উপচে পড়ি না আরবুকের মাঝে নেই সেই হিল্লোল,নেই সেই দূর্বার দূরন্ত গতি।আমি এক শুকিয়ে যাওয়া নদী।বাজে না আর জলের কলকল ধ্বনিক্লান্তিহীনভাবে বয়ে চলার বালাই নেই,নেই দুধারে সবুজের সমাধি।আমি এক শুকিয়ে

পুরোটা পড়ুন
village road

গ্রাম্য আলাপ

চিন্তিত শ্বশুর মশাইআসে না কেনো মেয়ের জামাই!জামাই গেছে দুইদিন হয়আছে আবার লকডাউনের ভয়!করোনায় ভয় নাইমেয়ের জামাই আসা চাই।জামাই বাবাজি আসার বেলায়করোনারা নাকি দূরে পালায়!ছুটি-ছাঁটার যতো মাসমেয়ে-জামাই বারোমাস।খরচা-পাতির ঠেলা যতোছেলেরা আছে মনের মতো।জামাই-শ্বশুর জিন্দাবাদকরোনার মাথায় হাত।

পুরোটা পড়ুন
Nostalgia

রিকশালোজিয়ার পদ্মপাখি

এরপর আমার চোখগুলো রাস্তায়স্কেটিং করে বেড়াতো,যেন সে এক নীল হুডের রিক্সা। গোলক দৃশ্য থেঁথলে গেলে পরে–একরাশ প্রজাপতি উড়ে যাওয়ার দিনে;আমিও, বনভূমির পরিচয় নিয়েহেরে যাবো মানুষের কাছে।

পুরোটা পড়ুন